কঙ্গোতে নৌকাডুবি, ভারতে বাস খালে: নিহত ৯৭, নিখোঁজ কয়েকশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের মধ্য প্রদেশে যাত্রীবাহী একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খালে পড়ে যাওয়ার পর অন্তত ৩৭ জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার মধ্যপ্রদেশের সিদ্ধি জেলায় এই দুর্ঘটনায় আরও বেশ কয়েকজনের প্রাণহানির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এনডিটিভি। বাসটিতে প্রায় ৬৫ জন যাত্রী ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। সাত জনকে উদ্ধার করা হলেও এখনও পর্যন্ত অন্তত ২০ জন নিখোঁজ রয়েছেন। মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপাল থেকে প্রায় ৫৫০ কিমি দূরে সিদ্ধি জেলায় ভোরে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

আচমকাই বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেতু থেকে সোজা খালে পড়ে যায়। পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে বেশ কয়েকজনের। বেসরকারি মালিকানাধীন বাসটি সিধি থেকে সাতনা যাচ্ছিল। পথে শারদা খালে দুর্ঘটনায় পড়ে। দুর্ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের প্রতিনিধি হিসেবে দুই মন্ত্রী। ফোনে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তিনি প্রতি মুহূর্তের খবর নিচ্ছেন। তিনি জানান, সাত যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতদের পরিবারের জন্য পাঁচ রুপি করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন চৌহান।

এদিকে, কঙ্গোতে যাত্রীবোঝাই নৌকা ডুবে অন্তত ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছেন আরও কয়েকশ মানুষ। রয়টার্সের প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে। মানবিক সহায়তা বিষয়ক মন্ত্রী স্টিভ বিকায়ি টুইটবার্তায় জানায়, ওই নৌকায় ৭০০ এর বেশি যাত্রী ছিলেন। দেশের পশ্চিমাঞ্চলে মাই নম্বি প্রদেশের লংগোলা গ্রামের কাছে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ৩০০ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া ২৪০ জনের এখনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

রোববার রাতে নৌকাটি কিনশাসা থেকে এমবান্ডাকার দিকে রওয়ানা হয়েছিলো। ধারণা করা হচ্ছে, ঝুঁকিপূর্ণ নৌকা ব্যবহার করা এবং অতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল তোলার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। রাতের বেলা নৌকা চালনাও এই দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ বলে মনে করেন মন্ত্রী। কঙ্গোতে নৌকা দুর্ঘটনার ঘটনা সাধারণ। দেশটির বেশিরভাগ মানুষের দীর্ঘ ভ্রমণের জন্য নদীপথই একমাত্র মাধ্যম। বিশাল বনাঞ্চলজুড়ে কয়েকটি নদীপথ রয়েছে, যেখানে প্রায়শই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।